ছবি: সংগৃহীত

বনানীর অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়েই চলছে। বৃহস্পতিবার (২৮ মার্চ) রাত আটটা পর্যন্ত এ সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ জনে।

আর আহতের সংখ্যা ৭০ জন বলে জানা গেছে।

ফারুক রূপায়ণ (এফ আর) টাওয়ারে লাগা ওই অগ্নিকাণ্ড সন্ধ্যার দিকে নিয়ন্ত্রণে আসে।

এর পর ভবনটির বিভিন্ন ফ্লোরে প্রবেশ করেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

আর এতেই বের হতে থাকে একের পর লাশ।

পানির স্বল্পতার কারণে আগুন নিয়ন্ত্রণের কাজে ফায়ার সার্ভিস কর্মীদের বেগ পেতে হচ্ছিল।

বারবার পানি ফুরিয়ে যাচ্ছিল। মাঝে মাঝেই পুরো এলাকাটি ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন হয়ে যাচ্ছিল।

এরপর বিকেল চারটার দিকে বড় ক্রেনের সাহায্যে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা উদ্ধার কাজ শুরু করেন।

দুই/তিন ঘণ্টা ধরে আগুন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা বিফলে গেলে উদ্ধার তৎপরতায় ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদের পাশাপাশি বিভিন্ন বাহিনী কাজ শুরু করে।

২৩ তলা ভবনের ছাদের ওপর চক্কর দিতে শুরু করে বিমানবাহিনীর হেলিকপ্টার।

হেলিকপ্টার থেকে আগুন নেভাতে পানি ছোড়া হয়।

এরপর ‘এয়ার-লিফট’ পদ্ধতিতে ভবনের ছাদের ওপর আশ্রয় নেয়া মানুষদের হেলিকপ্টারে তুলে নিয়ে আসা হয়।

সবশেষ সন্ধ্যার দিকে নিয়ন্তণে আসে আগুন।

তারুণ্য বার্তা/এইচএম

আপনার মতামত লিখুন