৫০ পেরিয়ে ৫১’ তে তিতুমীর। সুবর্ণজয়ন্তীর এ দিনটি অনেকের কাছেই স্মরনীয় হয়ে থাকবে। শনিবার অনুষ্ঠানে যোগ দিতে অনেকেই দূর-দূরান্ত থেকে ছুটে এসেছিলেন। আর অনুষ্ঠানের সার্বিক তত্ত্বাবধানে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করে প্রশংসিত ‘তিতুমীর কলেজ সাংবাদিক সমিতি’।

সুবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠানে বুথের মাধ্যমে গিফট আইটেম এবং উপকরণ বিতরণ শুরু হয় সকাল ৯টায়। এন্ট্রি বুথ থেকে এন্ট্রি কার্ড সরবারহ করে তিতুমীর কলেজ সাংবাদিক সমিতির (সতিকসাস) একঝাঁক তরুণ। এ সময় সতিকসাসকে সহযোগিতা করে তিতুমীর কলেজ বিতর্ক ক্লাব, বিএনসিসি ও স্কাউটের সদস্যরা।

এন্ট্রি কার্ড বিতরণ শেষে অনুষ্ঠানে বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করে সতিকসাস।

অনুষ্ঠানে প্রস্তুতি থেকে সমাপ্তি পর্যন্ত নিরলসভাবে কাজ করে গেছেন সতিকসাসের তরুণ এ শিক্ষার্থীরা। দাওয়াত কার্ড থেকে শুরু করে চিঠি বিলি সবটাই করেছে সংগঠনটি।

সংগঠনের সদস্যদের বক্তব্য, ক্যাম্পাসের প্রতি ভালোবাসা থেকেই তারা এ দায়িত্ব কাঁধে তুলে নিয়েছিলেন। নতুনদের সাথে পুরোনো শিক্ষার্থীদের মেলবন্ধনই ছিল অনুষ্ঠানের মূল লক্ষ্য।

কলেজটির অধ্যক্ষ প্রফেসর আশরাফ হোসেনের সভাপতিত্বে সুবর্ণজয়ন্তী অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, ঢাকা ১৭ আসনের সংসদ সদস্য আকবর হোসেন পাঠান (নায়ক ফারুক), তিতুমীর কলেজ সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব সিরাজ উদ্দিন আহমেদ, যুগ্ম আহ্বায়ক কামাল উদ্দিন আহমেদ,বীর প্রতীক মোজাম্মেল আনোয়ার, সাবেক স্বাস্থ্য সচিব শাহনেওয়াজ প্রমুখ।

আপনার মতামত লিখুন