তখন ষষ্ঠ ওভারের খেলা চলছিল। উইন্ডিজ পেসার কেমার রোচের করা একটি বল ঠিকমতো ব্যাটে লাগাতে ব্যর্থ হন ভারতীয় ওপেনার রোহিত শর্মা। হালকা আওয়াজ শোনা যাওয়ায় আউটের জোরালো আবেদন করে উইন্ডিজ ক্রিকেটার। তবে মাঠের আম্পায়ার সে আবেদন নাকচ করে দেন।

আউটের ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী থাকা উইন্ডিজ দল রিভিউয়ের আবেদন করে। সেখানে বল স্পর্শ হওয়ার ব্যাপারে স্নিকো মিটার ইতিবাচক দেখায়। তবে ব্যাট ও প্যাডের এতটাই কাছে বলটি ছিল যে, খালি চোখে নিশ্চিত করে বলা কঠিন বলটা আসলে ব্যাটে নাকি প্যাডে লেগেছিল। থার্ড আম্পায়ার অবশ্য আউটের সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেন।

আম্পায়ার মাইকেল গফের এমন সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারছিলেন না রোহিত। কিছুক্ষণ হতবাক হয়ে ক্রিজে দাঁড়িয়ে থাকার পর সাজঘরে ফিরে যান তিনি। আউট হওয়ার আগে ২৩ বলে ১৮ রান করে করেন রোহিত। এই আউট নিয়ে চলছে বিতর্ক। আম্পায়ারকে দুষছেন ভারতীয় সমর্থকরা। তাদের দাবি, বলটা রোহিতের প্যাডেই লেগেছিল।

আল্ট্রা এজের স্পাইক দেখে সহজে সিদ্ধান্ত উপনীত হওয়া কঠিন হয়ে দাঁড়ায় যে বলটি আসলে কোথায় ঘেঁষে বেরিয়েছে। অথচ থার্ড আম্পায়ার মাইকেল গফ বিশেষ সময় ব্যয় না করে তড়িঘড়ি ফিল্ড আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত বদল করে আউটের সিদ্ধান্ত দেন। আর তাতেই ভারতীয় সমর্থকদের রোষের মুখে পড়েন এই ব্রিটিশ আম্পায়ার।

মাঠে যখন রোহিতের আউট নিয়ে তুমুল বিভ্রান্তি, তখনই ক্যামেরায় ধরা হয়েছিল স্ত্রী রিতিকা সাজদেকে। রোহিতকে আউট দেওয়ার সিদ্ধান্তে বেশ চমকে যান তিনি। বিস্মিত হয়ে রোহিতপত্নী বলতে থাকেন ‘হোয়্যাট’! ওই ঘটনার ছবি ও ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোতে।

আপনার মতামত লিখুন